বই রিভিউ

বুক রিভিউ সাইট গল্পিবাজের পড়া সেরা গল্প

বুক রিভিউ সাইট -পৃথিবীর এই সংকটময় মুহুর্তে কিছুতেই ঠিকঠাক মন বসানো যাচ্ছে না। তবুও বেশ কয়েকটা বই পড়া হয়েছে। বিশেষ করে নবীনদের বইগুলো নিয়ে রিভিউ দেয়া উচিত ছিল। কিন্তু বর্তমান মানসিক অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে সেটা পারছি না আপাতত। ছোট করে প্রতিটি বইয়ের আমার ভালো লাগা, মন্দ লাগা লিখে দিয়েছি।
১. আমার দেখা নয়া চীন – বুক রিভিউ সাইট গল্পিবাজ শেখ মুজিবুর রহমান।
(একজন রাজনৈতিক নেতা তথা একজন পছন্দের মানুষকে কাছ থেকে জানার পাশাপাশি চীনের তৎকালীন সদ্য প্রতিষ্ঠিত কমিউনিস্ট সরকারের অনেক কার্যক্রম সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়।)
২. কয়েকটি বিহ্বল গল্প – শাহাদুজ্জামান
( ছোটগল্পের বই। লেখকের খুব শক্তিশালী লেখনীতে বইটি সাহিত্যের অমর সৃষ্টি। নবীন লেখকদের জন্য খুব উপকারী একটি বই। বইটা পাঠকের ভাবনার জগতে নিয়ে যায়। সমাজের কিছু নির্লজ্জ বাস্তব চিত্র নিয়ে লেখক এই গল্পগ্রন্থ সাজিয়েছেন।)
৩. একটি শোক সংবাদ – সাব্বির জাদিদ
(১৭ সালে প্রকাশিত লেখকের গল্পগ্রন্থ। আমি বইটা পড়া শেষ করেই লেখককে বলেছিলাম, বইটা তিন বছর আগের লেখা। আপনার লেখা নিশ্চয়ই তিন বছরে আরো উন্নত হয়েছে। সাব্বির জাদিদের গল্প গুলোর প্লট চমৎকার। খুব বাস্তবধর্মী লেখা। যা বর্তমানে অনেক লেখকই এড়িয়ে যেতে চান। এক্ষেত্রে তিনি ব্যতিক্রম। সমাজের নির্মম সত্য গুলোই তিনি গল্পে তুলে ধরেছেন। উনার পিতামহ পড়ার আগ্রহ আছে।)
৪. একজন ঈশ্বরের গল্প – তরীকুল মামুন তরী
(এটাও ছোটগল্পের বই। গল্পগুলো ভালো লেগেছে। লেখকের লেখার হাত ভাল। সুন্দর সাবলীল ভাষায় গল্পগুলো লেখা। তবে বেশিরভাগ গল্পই ছিল বিচিত্র কিছু প্রেম ঘটিত কোন না কোন ব্যপার নিয়ে। যদিও প্রতিটি গল্পের প্লটেরই ভিন্নতা ছিল। তবুও খানিকটা একঘেয়েমি এসে যায়। শব্দচয়ন, বর্ণনাভঙ্গি ভালো ছিল।
লেখককে নিয়ে আশাবাদী। সুষ্ঠু চর্চায় আমারা লেখকের থেকে ভালো কিছু পেতে পারি আশা করি।)
৫. মোগলনামা (২য় খড) – মাহমুদুর রহমান।
(সম্রাট আওরঙ্গজেবের পরবর্তী সম্রাটদের শাসনকাল তথা মোগল ইতিহাসের সমাপ্তি পর্যন্ত সময়কালকে নিয়ে এই বই। ইতিহাস নিয়ে সুখপাঠ্য একটি ননফিকশন বই আমার কাছে। মোগল ইতিহাস জানার আগ্রহ থাকলে এই লেখকের মোগলনামা দুই খন্ড আপনিও হাতে তুলে নিতে পারেন।)
৬. নার্গিস – বিশ্বজিৎ চৌধুরী
( কবি নজরুলের প্রথম প্রেমিকা নার্গিসকে নিয়ে এই উপন্যাস। বিশ্বজিৎ চৌধুরীর লেখার ধরন সুন্দর যা গল্পের ভেতরে সহজেই প্রবেশ করাতে সক্ষম হয়।)
৭. এখানে ভীষণ রোদ – ওয়ালিদ প্রত্যয়
( ছোটগল্পের বই। একজন নবীন লেখকের প্রথম বই পড়ে অনেক বেশি বিস্মিত হয়েছি। প্রতিটি গল্পই বলে দেয় অনেক প্রস্তুতি নিয়ে লেখক লেখার জগতে পা রেখেছেন। প্রতিটি গল্পের চিত্র নির্মাণে বেশ দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন লেখক। বর্তমানে যারা নতুনদের ভালো বই আসা নিয়ে হতাশ তারা অবশ্যই এটা পড়বেন।)
৮. প্রদোষে প্রকৃতজন – শওকত আলী
(কিছু বই থাকে যার অনুভূতি বলে বোঝানো সম্ভব নয়। এটাও তার একটা। এককথায় এসব বইকে মাস্টারপিস বললেও যেন কম হয়। বাঙলা সাহিত্যের একটা সমৃদ্ধ সৃষ্টি প্রদোষে প্রাকৃতজন। বুক রিভিউ সাইট গল্পিবাজ। শেষ সেন রাজা লক্ষণ সেনের সময়ের চিত্র উঠে এসেছে বইতে। )
৯. অগ্নিপুরাণ – নিজাম নূর
(প্রদোষে প্রাকৃতজন আর অগ্নিপুরাণ একই সময়ের পটভূমিতে রচিত। অগ্নিপুরাণে গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক চরিত্রগুলোই প্রধান চরিত্র। বখতিয়ার খিলজি, রাজা লক্ষণ সেন এই উপন্যাসের গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র। এই বইয়ের ভালো লাগা মন্দ লাগা নিয়ে কিছু বলতে গেলে সম্পূর্ণ নিজের দায় নিয়ে বলতে হবে। এটা নিয়ে অনেক জলঘোলা হয়েছে দেখলাম। আমার ব্যক্তিগতভাবে বইটা ততো ভালো লাগেনি। বর্ণনার বাহুল্যতায় বিরক্তি এসেছে বারবার। তবুও বইটা হাতে তুলে নিতে পারেন আপনারা। সময়টা একেবারে খারাপ কাটবে না আশা করি। ইতিহাস আছে ভালো লাগবে।)
১০. অলীক মানুষ – সৈয়দ মুস্তফা সিরাজ।
( ১৮ শতকের শেষাংশ আর ১৯ শতকের শুরুর সময়টা নিয়ে উপন্যাসের প্লট। তৎকালীন রাজনৈতিক আন্দোলন, ফরায়েজী আন্দোলন, বাঙালি মুসলমান, হিন্দুদের কুসংস্কার, ব্রাহ্ম ধর্মের প্রচলন ইত্যাদি বিষয় এই উপন্যাসে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। উপন্যাসের একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র দার্শনিক মনোভাবের পাওয়া যায়। বইটা আমার পছন্দের বইয়ের তালিকায় যুক্ত হয়েছে।)
১১. ইতিহাসের স্বপ্নভঙ্গ – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়।
( ১৯৯০ সালের ৩ অক্টোবর ঐতিহাসিক বার্লিন প্রাচীর ভাঙ্গার সাক্ষী হওয়ার জন্য লেখক বন্ধুর সাথে জার্মানে উপস্থিত হয়েছিলেন। তারপর চেকশ্লভিয়া হাঙ্গেরি, রোমানিয়া , রাশিয়া ইত্যাদি দেশ ভ্রমণ করেন, সেসব দেশের মানুষের সাথে কথা বলেন। বইটা ভ্রমণ কাহিনীর সাথে রাজনৈতিক বিশ্লেষণ করা হয়েছে। একজন লেখক থাকবেন আর সেখানে সাহিত্য আলোচনা থাকবে না তা হতে পারে না। সমাজতন্ত্রী দেশগুলোর স্বপ্নভঙ্গ এর কারণগুলো লেখক নিজের মতো করে আলোচনা করেছেন বইতে। সুনীল আমার বরাবরই পছন্দ। এই বইটার পছন্দের তালিকায় যুক্ত হলো।)
১২. অসমাপ্ত আত্মজীবনী – শেখ মুজিবুর রহমান। ( গত মাসের অর্ধেক পড়া ছিলো। শেখ সাহেবের সাথে একটা দীর্ঘ জার্নি শেষ হলো। পাকিস্তান সৃষ্টির সুচনা, আওয়ামীলীগের জন্মলগ্নের অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বইতে পাওয়া যায়।)
#বিঃদ্রঃ এখানে ফেসবুকে রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে কেউ বিতর্ক সৃষ্টি করার চেষ্টা করবেন না। আমার ফেসবুকে এসব নিয়ে বিতর্ক করার ইচ্ছে নেই। বই পড়ুন, বই থেকেই জানুন।
১৩. শঙ্খনীল কারাগার – হুমায়ূন আহমেদ।
(আমার পড়া হুমায়ূন আহমেদের বইগুলোর মধ্যে খুব ভালো একটা বই। বুক রিভিউ সাইট গল্পিবাজ ।সাময়িক স্ট্রেস থেকে মু্ক্তি পাওয়ার জন্য বইটা হাতে নিয়েছিলাম। সময়টা পুরোপুরি স্বার্থক ছিল। সম্পূর্ণ ডুবে গিয়েছিলাম একটা মধ্যবিত্ত পরিবারের বন্ধনে।)
১৪.বাঙালনামা – তপন রায়চৌধুরী
( স্বরচিত আত্মজীবনী সবসময়ই পছন্দের। বাঙলনামা আমার পড়া আত্মজীবনী গুলোর মধ্যে অন্যতম ভালো লাগার বই। অনেক না জানা রাজনৈতিক ইতিহাস উঠে এসেছে এই আত্মজীবনীতে। যে কারণে এটা বিতর্কিত বইও। এখনো শেষ হয়নি। অর্ধেকের মতো পড়া হয়েছে।)
আরো কয়েকটা শুরু করা বই আছে হাতে। বুক রিভিউ সাইট গল্পিবাজ । ৩০/৪০/৭০ পৃষ্ঠার মতো পড়া বই আছে দু-তিনটা।
আমার লিস্টের সকল নবীন লেখকদের জন্য জানাই শুভকামনা।
আমার ইচ্ছা ছিল আগামী মাস থেকে রাজনীতি নিয়ে আরেকটু পড়াশোনা করবো। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে আমার মনে হচ্ছে এই বিষয় থেকে একটু দূরে থাকাই আমার জন্য ভালো হবে। তাই অন্যদিকে মোড় নিয়েছি। ধর্ম ও দর্শনের দিকে চললাম আপাতত।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button