অন্যান্য

পুদিনা পাতা এর গুনাগুন এবং উপকারীতা জেনে নিন!

 

পুদিনা পাতা

পুদিনা পাতা আমাদের সকলের পরিচিত একটি বস্তু! দৈনন্দিন জীবনে বিভিন্ন কাজে এটিকে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এটি মূলত এক ধরণের ভেষজ উদ্ভিদ।এবং গুনাগুন সম্পন্ন ! মূলত আজকের আর্টিকেলে আমি আপনাদের পুদিনা পাতার কিছু গুনাগুন সম্পর্কে অবগত করব যেনো আপনাদের তা উপকারে আসে!কেননা পাঠকদের উপকারের কথা ভেবেই আমরা আমাদের আর্টিকেল গুলিকে সাজাই।

তাহলে চলুন শুরু করা যাক !

পুদিনা পাতার উপকারিতাঃ

পুদিনা পাতা আমাদের দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করে থাকে,যা আমাদের দেহের যেকোনো রোগ প্রতিরোধের সক্ষমতা যোগায়! এটিতে প্রচুর পরিমানে  ভিটামিন এ , বি-কম্লেক্স এবং ভিটামিন সি রয়েছে।

 

পুদিনা পাতায় প্রচুর পরিমানে মেনথল থাকে,যা নাকের ভেতরে বেড়ে ওঠা মেম্ব্রেনকে সাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে।এছাড়াও এটি হাপানি রোগ সাড়াতে বেশ কার্যকর।

 

আমাদের মানুসিক চিকিতসার ক্ষেত্রে পুদিনা পাতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান।এটি একজন মানুসিক রোগীর সুস্থতায় ব্যবহৃত হতে পারে।

ত্বকের যত্নে মূলত পুদিনা পাতা ব্যবহৃত হয়ে থাকে । এছাড়া যেকোনো ধরণের চর্ম রোগ সাড়াতে এটি অত্যন্ত সহায়ক।

 

এছাড়াও এটি দ্বারা বিভিন্ন মলম ব্যবহৃত হইয়ে থাকে,যা আপনার মাথা ব্যাথা সাড়াতে বেশ কার্যকর।এছাড়াও এটি বিভিন্ন মাথা ব্যাথা নিরামক তেলেও ব্যবহৃত হতে পারে।যেহেতু এতে রয়েছে মেনথল। যদি আপনি এটিকে সরাসরী ব্যবহার করতে পারেন তাহলে সেই ক্ষেত্রে এটি আপনার জন্য আরো বেশী কার্যকর হবে।

আমাদের ওয়েব সাইট ভিসিট করুন!

একজন স্পেশালিস্ট হিসেবে আমি বলব,আপনি পুদিনা পাতা সংগ্রহ করে এটি সরাসরী ব্যবহার করুন,যেনো তা আপনার ক্ষেত্রে আরো বেশী কার্যকর হয় এবং মলমের বা তেলের কেমিক্যাল রিয়েকশন থেকে আপনি মুক্তি পান!

 

 

এছাড়া এটি আমাদের মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে সহায়তা করে এবং আমাদের মাড়িকে সুস্থ সবল রাখে !

 

পুদিনা পাতা খাওয়ার নিয়ম

 

১। গোসলের আগে বালতির ভেতরে কিছু সংখ্যক এই পাতা ভিজিয়ে রাখুন , এবং ১ ঘন্টা পর সেই পানি দিয়ে গোসল করুন । এতে করে আপনার শরীর ও মন দুইটি চাঙা থাকবে।

২।পুদিনা পাতার চাঃ এই পাতার চা প্রস্তুত প্রণালী খুব সোজা।এর জন্য আপনাকে যা করতে হবেঃ

  • ৬ থেকে ৭ টি পুদিনা পাতা গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন।অতপর তা মধুতে মিশিয়ে নিলেই প্রস্তুত হয়ে যাবে পুদিনা চা!

৩।পুদিনার সাথে আপনি গোলাপ,শশা,আলমার নির্যাস তৈরী করে মুখে ব্যবহার করতে পারেন , যাতে করে আপনার মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে এবং একই সাথে আপনার ত্বক হবে মসৃন ও কোমল।

৪।পুদিনা পাতা যেহেতু মাথার ব্যাথা উপশমে বেশ কার্যকর,তাই আপনি চাইলে এটি চিবিয়ে খেতে পারেন যেনো আপনি মাথা ব্যাথা থেকে উপশম পান।

 

ক্যান্সার রোধে পুদিনাঃ

 

ক্যান্সার প্রতিরোধে পুদিনা পাতা বেশ উপকারী। কেননা এতে রয়েছে পেরিলেল অ্যালকোহল যা ফাইটো নিউট্রিয়েন্টস , যা আমাদের দেহের ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা প্রদান করে। আমরা প্রায়সই বিভিন্ন ভাবে ক্যান্সারের ঝুকিতে ভুগি। কিন্তু যদি আমরা দৈনিক পুদিনা পাতা গহণ করতে পারি তাহলে তা আমাদের জন্য বেশ উপকারী হবে।কেননা এটি আমাদের দৈনন্দিন ক্যান্সারের ঝুকি থেকে ন্যাচরালি হিল করবে।

আজ আর্টিকেলটি এই পর্যন্তই। আশা করি আপনাদের আর্টিকেলটি ভালো লেগেছে। যদি আর্টিকেলটি ভালো লেগে থাকে তাহলে আর্টিকেলটি শেয়ার করতে ভুলবেন না। আর্টিকেলটি শেয়ার করে আমাদের ওয়েবসাইটে সাথেই থাকবেন ।  ততক্ষণ পর্যন্ত ভালো থাকবেন,সুস্থ থাকবেন আল্লাহ হাফেজ ! 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button